Analyst Forum

এজিএম কী এবং কেন?

Posted By : iftekhar    April 14, 2019   

image not available

এজিএম কী এবং কেন? 

Annual General Meeting (AGM) অর্থাৎ শেয়ারহোল্ডারদের বাৎসরিক সাধারণ সভা। কোম্পানি আইন ১৯৯৪-এর ধারা ৮১ অনুসারে প্রতিটি পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিকে প্রতি বৎসর একবার সাধারণ সভা করতে হয়। এক  সাধারণ সভা থেকে আর এক সাধারন সভার মেয়াদ এক বৎসরের বেশি বা হিসাব বৎসর শেষের ৬ মাসের উভয়ের মধ্যে যেটা কম সে সময়ের মধ্যে এজিএম করতে হবে। এজিএম এ পরিচালকদের প্রতিবেদন, সংশ্লিষ্ট বছরের লাভ লোকসানের হিসাব, নিরীক্ষকদের রিপোর্ট, ডিভিডেন্ড ঘোষণা, পরিচালক নির্বাচন, নিরীক্ষক নিয়োগ, সভাপতির অনুমতিক্রমে অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিষয়ে পর্যালোচনা ও অনুমোদন দেওয়া হয়।

বড় বিনিয়োগকারীদের এজিএম’এ অংশগ্রহণ করে উত্থাপিত আলোচ্যসূচির উপর আলোচনা শোনা এবং সম্ভব হলে নিজে আলোচনায় অংশগ্রহণ করে নিজের অধিকার প্রয়োগ করতে পারেন। গঠনমূলক আলোচনা পরিচালকদের ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্ধারণে সহায়তা করে। দায়সারা গোছের এজিএম যেন না হয় সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সকলকে দৃষ্টি রাখতে হবে। কোম্পানি পরিচালকদের এজিএম পরিচালনায় পূর্ব প্রস্তুতি নেওয়া প্রয়োজন। নিরাপদ পুঁজিবাজারের জন্য তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর এজিএম’এর গুণগত মানের তুলনামূলক মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। এজিএম শেয়ারহোল্ডারদের বাৎসরিক মিলনমেলা। কোম্পানিগুলো চাইলে এটাকে মার্কেটিং ইভেন্ট হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন। হাজার হাজার বিনিয়োগকারী তাদের অবচেতন মনে কোম্পানির অবৈতনিক বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে পারেন। সবকিছু নির্ভর করে পরিচালক ও বিনিয়োগকারীদের মনোভাব ও আন্তরিকতার উপর।  অনেক কোম্পানির ক্ষেত্রে এজিএমকে আইনের বাধ্যবাধকতা হিসেবে পালন করা হয়। সুস্থ পুঁজিবাজারের জন্য সুষ্ঠ পরিবেশে এজিএম অপরিহার্য। 

এজিএম-এর নোটিশ এবং তৎসংক্রান্ত Price Sensitive Information একই তারিখে পত্রিকায় প্রকাশ করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত? সাধারণত প্রাইস সেনসেটিভ তথ্যগুলো বিনিয়োগকারীগন আগে পেতে চায়। প্রাইস সেনসেটিভ তথ্য প্রকাশিত হতে দেরি হলে বাজারে গুজব সৃষ্টি হয়। প্রাইস সেনসেটিভ তথ্য প্রকাশের আইনী ফাঁক-ফোকর বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।

দুঃখের সাথে বলতে হয় আমাদের এজিএম এর সার্বিক মান নি¤œ মানের। কিছু চিহ্নিত অতি ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী প্রায় এজিএম-এ কোন কারন ছাড়া বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে দেখা যায়। এরা এজিএম-এ নিজেদের মধ্যে বক্তব্য দেওয়ার প্রতিযোগিতায় নামে অনেকে। পরিবেশ এমন হতে দেখা যায় ওদের স্থুল,অপ্রাসঙ্গিক বক্তব্যের পর অন্য কারো নিজেদের বিশ্লেষণধর্মী মতামত দেওয়ার আগেই বিশৃঙ্খলার মধ্যে এজিএম এজেন্ডা শেষ হয়ে যায়। এর পিছনে আর্থিক লেনদেন পর্যন্ত হতে শোনা যায়। এরা এজিএম পার্টি নামে পরিচিত। এজিএম পার্টির দৌরাত্ত্বে অনেক নামিদামী তালিকাভূক্ত কোম্পানির পরিচালকদের বিব্রত হতে দেখা যায়। অনতিবিলম্বে এজিএম এর কার্যাবলী শৃঙ্খলায় আনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিৎ। অনেক সময় নিজেদের মধ্যে হাতাহাতি হতে দেখা যায়। এজিএম এ উপস্থিত সর্বোচ্চ শেয়ারদারীদেরকে বক্তব্য রাখার নিয়ম করে দিলে এজিএম পার্টির লোকজন বক্তব্য রাখার তালিকায় পরবেনা। এরা সাধারণত রেকর্ড ডেটের আগে নাম মাত্র সংখ্যক শেয়ার কিনে এজিএম এর উপস্থিত বৈধতা তৈরি করে। বিএসইসিকে বিষয়টি গভীর ভাবে ভেবে দেখতে হবে। এইভাবে এজিএম চলতে দেওয়া যায়না।

এজিএম কি প্রতি বৎসর নির্দিষ্ট তারিখে করতে হয় ? 

না নির্দিষ্ট তারিখে হয় না । তবে এক এজিএম এর তারিখ থেকে আর এক এজিএম এর তারিখ ১২ মাসের বেশি সময় হতে পারবেনা। এই হিসাব করে ও পরবর্তি বৎসরের শেষ বোর্ড মিটিং এর সম্ভাব্য তারিখ ও এজিএম এর তারিখ অনুমান করতে পারলে বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত নিতে সহজ হতে পারে।

আমাদের দেশের এজিএম কি মানসম্মত ভাবে পরিচালিত হয়?

আমাদের দেশের এজিএম কালচার সামগ্রীক ভাবে অত্যন্ত নি¤œমানের। কিছু কিছু কোম্পানী সময়মত এজিএম করেনা। অনেক কোম্পানি ১ ঘন্টার মধ্যে এজিএম সম্পন্ন করে ফেলে। অনেক এজিএম-এ এজিএম পার্টির দৌরাত্বের কারণে সাধারণ বিনিয়োগকারী এবং প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের প্রতিনিধি এজিএম এ বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন এবং ডাইরেক্টর রিপোর্ট এর উপর বক্তব্য রাখার কোন সুযোগ পায়না। এজিএম পার্টির ( আনুমানিক ১৫-২০ জন) কিছু কিছু চিহ্নিত লোক স্পটের সময় দুই চারটি শেয়ার কিনে এজিএম এ উপস্থিত থাকার বৈধতা লাভ করে। প্রায় সকল কোম্পানির এজিএম এ এরা উপস্থিত থাকে। এরা প্রায় সকল এজিএম এ বক্তব্য রাখেন। এদেরকে সন্তুষ্ট না রেখে এজিএম করা যায়না। এদের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের ও অভিযোগ আছে। উদ্যোক্তাদের কে কোন কোন এজিএম এ আইন শৃঙ্খলা বাহিনির সহযোগিতা নিতে ও দেখা গেছে। বিএসইসির নিয়ম অনুসারে এজিএম এর আন এডিটেড ভিডিও জমা দেওয়ার নিয়ম আছে। এসব ভিডিও দেখার লোক আছে বলে আমাদের জানা নেই। ভিডিও দেখার পর ব্যবস্থা নিয়েছেন এমন তথ্য চোখে পড়েনা। অসুস্থ এজিএম এর কারনে অনেক নামিদামী কোম্পানী পুঁজিবাজারে আসতে  অনিচ্ছুক।  এজিএম এ বক্তব্য রাখার জন্য উপস্থিত শেয়ার হোল্ডারদের মধ্যে যাদের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শেয়ার আছে তাদের কে বক্তব্য রাখার নিয়ম করা উচিৎ। ১০/২০ টা শেয়ার কিনে ৩০/৪০ দিনের জন্য হোল্ড করে এজিএম এ অপ্রাসঙ্গিক, অশালিন, উদ্দেশ্য প্রনোদিত বক্তব্য রাখার আইন করে বন্ধ করে দেওয়া যেতে পারে।  পুঁজিবাজারের উন্নয়নের স্বার্থে এজিএম এর ব্যাপারে যেসকল অভিযোগ আছে তা অতিসত্বর দুর করা উচিৎ। বিএসইসি কে এ ব্যাপারে কঠোর হওয়ার সময়ের দাবী।

বিনিয়োগকারীদের জন্য এজিএম-এর খবরাখবর কেন প্রয়োজন?

যে বোর্ড মিটিং এ এজিএম এর তারিখ নির্দ্ধারিত হয় সেই মিটিং এ স্পট ডেট, ডিভিডেন্ড, বোনাস ইত্যাদি অনুমোদন করা হয়।  এজিএম এর নোটিশ এজিএম এর ১৪ দিন পূর্বে দিতে হয়। সম্ভাব্য এজিএম এর তারিখ হিসাব করে এজিএম সংক্রান্ত বোর্ড সভার তারিখ অনুমান করা যায়। সময়ে কোন শেয়ারের মূল্য পরিবর্তন হতে দেখা গেলে ভালো বা মন্দ ঘোষনার আভাস বলে ধরে নেওয়া হয়। এজিএম ঘোষনার সম্ভাব্য তারিখ অনুমান করে ক্রয় বিক্রয় এর সিদ্ধান্ত নিতে পারলে বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত সঠিক হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকবে। কত তারিখের বোর্ড সভায় এজিএম’র সিদ্ধান্ত হবে এবং কবে এজিএম হবে এইসব খবরাখবর এর সঙ্গে শেয়ারের বাজার দর উঠানামার সরাসরি সম্পর্ক আছে। তাই বিনিয়োগকারীদের উচিৎ এ ব্যাপারে সঠিক হিসাব রাখা।

সিএসই এবং ডিএসই’র ওয়েব সাইটে এজিএম সংক্রান্ত বোর্ড সভার দিন তারিখ ও সময় প্রকাশিত হয়। হিসাব বছর শেষ হওয়ার ছয় মাসের মধ্যে অথবা পূর্বে অনুষ্ঠিত এজিএম এর তারিখ থেকে ১২ মাসের মধ্যে এজিএম করতে হয়। স্বাধারণত ৪র্থ কোয়ার্টার শেষ হওয়ার ৮০/১০০ দিনের কাছাকাছি তারিখে এজিএম সংক্রন্ত বোর্ড সভার ঘোষনা সিএসই বা ডিএসই ওয়েব সাইট/নিউজে প্রকাশ করা হয়।    

মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, এফসিএমএ

প্রাক্তন সভাপতি(১৯৯৫)আইসিএমএবি

ব্যবস্থাপনা পরিচালক,

আইল্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড।

ঢাকা স্টক একচেঞ্জ ট্রেক নং-১০৬,

চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ ট্রেক নং-০০৫,

লেখক: শেয়ার বাজার জিজ্ঞাসা

֩ Comments (0)

No comments, be the first who add

Administrator

Close Name:

Password:

Add Comment

Close       
     
-
-


B I U URL    :) :( :P :D :S :O :=) :|H :X :-*

Add this verification code:   11611



Analyst Forum