Analyst Forum

বাংলাদেশে পুঁজিবাজারের “তাত্বিক জ্ঞান” বা গবেষনা কেমন?

Posted By : iftekhar    May 28, 2019   

image not available

বাংলাদেশে পুঁজিবাজারের “তাত্বিক জ্ঞান” বা গবেষনা কেমন?

সত্যিকার অর্থে বলতে গেলে বাংলাদেশের ব্যবসা বনিজ্যের ক্ষেত্রে গবেষনা দক্ষতা উন্নয়নে একটি প্রয়োজনীয় উপাদান। কিন্তু এই প্রয়োজনীয় উপাদানটি এখনও গুরুত্বহীন অবস্থায় আছে। অনেক সরকারী প্রতিষ্ঠানে কাগজে কলমে গবেষনা শাখা আছে হয়তবা দায়িত্ব প্রাপ্ত লোকও আছে। কিন্তু তাদের গবেষনালব্ধ তথ্য চোখে পরেনা। পুঁজিবাজার এমন একটি জায়গা যেখানে আইন, পলিসি, রুলস্, রেগুলেশন প্রনয়নের জন্য গবেষনালব্ধ তথ্য নির্ঝাষ খুবই প্রয়োজন। স্টক এক্সচেঞ্জ এবং বিএসইসি উভয়েরই গভেষনা শাখা আছে। কিন্তু উল্লেখ করার মতো গবেষনা  মূলক কোন প্রকাশনা দেখা যায়না। ADB, World Bank, IFC  সময় সময় সরকারকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে গবেষনার অবকাঠামো তৈরী করার জন্য তাগাদা দিয়ে আসছে। অত্যন্ত আনন্দের বিষয় শেয়ার বিজে ০৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়- টেকসই উন্নয়ন ও আন্তর্জাতিক মানের প্রথম সারির পুঁজিবাজার গঠনের জন্য গবেষণাকে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। এ লক্ষ্যে “বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেট” গবেষণা এনডাউমেন্ট তহবিল পরিচালনা নীতিমালা, ২০১৭’ শিরোনামে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেট (বিআইসিএম) কর্তৃক প্রণয়ন করা এ প্রজ্ঞাপনটি গত ২২ জুন গেজেট আকারে প্রকাশ করেছে সরকার। দেশের পুঁজিবাজারের সুষ্ঠু উন্নয়ন নীতিমালা প্রণয়নের জন্য আর্থিক খাতের তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ, বিশ্লেষণ ও গবেষণা কার্যক্রম জোরদার করাই এর উদ্দেশ্য বলে জানান সংশিষ্টরা।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব মো.নাসির উদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে এ তহবিলের তিনটি মুখ্য উদ্দেশ্য উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে পুঁজিবাজার উন্নয়ন এবং এনীতিমালা সংক্রান্ত ইনস্টিটিউটের নিজস্ব গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা জোরদার করা। এ ধরনের গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সরকার, উন্নয়ন সহযোগী, সরকারি প্রতিষ্ঠান, পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সংস্থা, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং একক ব্যক্তি হতে অনুদান প্রাপ্তির মাধ্যমে গবেষণা কাজ বেগবান করা। এছাড়া পুঁজিবাজার উন্নয়ন নীতি প্রণয়নে সহায়তা দেওয়ার লক্ষ্যে চাহিদা মোতাবেক গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করার বিষয়টি নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে।

গবেষণা তহবিলের এ নীতিমালার কার্যক্রম বাস্তবায়নের কৌশল অধ্যায়ে বলা হয়েছে, বিএসইসির সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে পুঁজিবাজার উন্নয়ন ও নীতি-সংক্রান্ত গবেষণার বিষয়বস্তু নির্ধারণ এবং গবেষণা কার্যক্রম গ্রহণ করা। স্টক এক্সচেঞ্জ, ডেরিভেটিভস এক্সচেঞ্জ, কমোডিটিজ এক্সচেঞ্জ, সিকিউরিটিজ ডিপোজিটরি কোম্পানি, সেন্ট্রাল কাউন্টার পার্টিসহ পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট সব এক্সচেঞ্জের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট গবেষণা কার্যক্রম নির্বাচন ও পরিচালনা করা।

নীতিমালায় বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক পুঁজিবাজার কাঠামো, ব্যবস্থা, পদ্ধতি, গতি-প্রকৃতি এবং ধারা সম্পর্কে গবেষণা পরিচালনা করার কথা বলা হয়েছে। পুঁজিবাজারে নতুন সিকিউরিটিজ উদ্ভাবন ও সিকিউরিটিজ সম্পর্কে বিনিয়োগকারী এবং বাজার মধ্যস্থতাকারীদের অবহিত করা সম্পর্কিত গবেষণা পরিচালনা করা। পুঁজিবাজারে জ্ঞান ও প্রযুক্তি উন্নয়ন সম্পর্কে জ্ঞাত হওয়া এবং তা প্রয়োগের ব্যাপারে সুপারিশ করা।

পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট দ্বিপক্ষীয় ও আন্তর্জাতিক বৈঠক, সমঝোতা স্মারক বা চুক্তিতে উপনীত হওয়ার জন্য সরকার বা সরকারি সংস্থাকে তথ্য সরবরাহকল্পে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা গবেষণা কমিটির অন্যতম কাজ। এছাড়াও শিক্ষার সর্বস্তরে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট পাঠ্যক্রম তৈরিকল্পে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করার বিষয়টিও নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে।

পুঁজিবাজারে মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে পুঁজিবাজার সম্পর্কিত তাত্ত্বিক ও পেশাগত জ্ঞানের অবস্থা সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ এবং তাদের মানোন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার সুপারিশ করবে কমিটি। পাশাপাশি দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য গবেষণা তথ্য সরবরাহ করা ও গবেষণার ফল নীতি-নির্ধারকদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে সেমিনার, সভা এবং প্রকাশনার ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে জারি করা প্রজ্ঞাপনে।

গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গবেষকদের মানোন্নয়নে তাদের উচ্চশিক্ষার ব্যয় নির্বাহে সহায়তা প্রদান এবং আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য গবেষকদের ব্যয় নির্বাহে সহায়তা তহবিল ব্যবহার করার বিষয়টি নীতিমালায় উল্লেখ রয়েছে। যেভাবে তহবিল পরিচালনা হবে-

তহবিল পরিচালনার জন্য এ নীতিমালার অধীন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেট গবেষণা এনডাউমেন্ট তহবিল পরিচালনা কমিটি নামে একটি ছয় সদস্যের কমিটি থাকবে। তহবিল পরিচালনা কমিটির সভাপতি হবেন বিআইসিএমের নির্বাহী প্রেসিডেন্ট। অন্য সদস্যরা হলেন বিআইসিএমের পরিচালক (স্টাডিজ) ও বিআইসিএমের পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক মনোনীত তিন সদস্য। এর মধ্যে ন্যূনতম একজন গবেষক হবেন। কমিটির সদস্য সচিব হবেন বিআইসিএমের প্রশাসন ও অর্থ বিভাগের পরিচালক।

তহবিল পরিচালনা কমিটি বার্ষিক গবেষণা কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ, গবেষণা প্রস্তাব পর্যালোচনা করে উপযুক্ত প্রস্তাব নির্বাচন, তহবিলের সার্বিক পরিচালনাসহ ব্যবস্থাপনা, হিসাব সংরক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণ এবং তহবিলের অর্থে কার্যক্রম বাস্তবায়নে নীতি নির্ধারণ, দিক-নির্দেশনা ও কার্যক্রমের চূড়ান্ত অনুমোদন দেবে। এছাড়াও তহবিলের মাধ্যমে বাস্তবায়িত কার্যক্রমগুলোর পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন করবে পরিচালনা কমিটি। অনুন্য প্রতি তিন মাসে তহবিল পরিচালনা কমিটির সভা একবার অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা বলা হয়েছে নীতিমালায়।

ক্যাপিটাল মার্কেট গবেষণা এনডাউমেন্ট তহবিল পরিচালনা নীতিমালা প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ক্যাপিটাল মার্কেটের (বিআইসিএম) নির্বাহী প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আবদুল হান্নান জোয়ারদার শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মানের পুঁজিবাজার গঠনে গবেষণার কোনো বিকল্প  নেই। যদিও গবেষণায় আমাদের পুঁজিবাজার অনেক পিছিয়ে। কাঙ্খিত জনবল নিয়োগের মাধ্যমে এ নীতিমালা     বাস্তবায়ন করা গেলে পুঁজিবাজারের সব পক্ষ উপকৃত হবে। যা দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে সরাসরি অবদান রাখবে।’ আমাদের দেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উচিৎ এ ব্যাপারে মনোযোগ দেওয়া।


মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, এফসিএমএ

প্রাক্তন সভাপতি(১৯৯৫)আইসিএমএবি

ব্যবস্থাপনা পরিচালক,

আইল্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড।

ঢাকা স্টক একচেঞ্জ ট্রেক নং-১০৬,

চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জ ট্রেক নং-০০৫,

লেখক: শেয়ার বাজার জিজ্ঞাসা

֩ Comments (0)

No comments, be the first who add

Administrator

Close Name:

Password:

Add Comment

Close       
     
-
-


B I U URL    :) :( :P :D :S :O :=) :|H :X :-*

Add this verification code:   f3713



Analyst Forum